এর আগের টিউটোরিয়ালটিতে আমি উইন্ডোজ, লিনাক্স এবং ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে ফাইল বা ফোল্ডার হিডেন করার পদ্ধতি আপনাদের সাথে শেয়ার করেছিলো। টিউটরিয়ালটি ছিল একেবারেই বিগেনার লেভেলের টিউটোরিয়াল যা শুধুমাত্র নতুন ব্যবহারকারীদের কাজেই আসতে পারে। তাই আজ আমি আপনাদের সাথে কিছুটা অ্যাডভান্স লেভেলের ফাইল বা ফোল্ডার হাইড করার পদ্ধতি শেয়ার করব যাতে করে খুব সহজে যে কেউ আর আপনার সেই গোপনীয় ফাইলগুলোতে এক্সেস না করতে পারে। চলুন, শুরু করা যাক।

গত টিউটোরিয়ালটিতে  সিস্টেমের ডিফল্ট ইন্টারফেসের সাহায্যে ফাইল হাইড করার পদ্ধতি শিখিয়েছিলো, আজ আমরা অন্য একটি অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করে ফাইল বা ফোল্ডার হাইড করতে শিখব। বলে রাখা ভালো, আজকের টিউটোরিয়ালটি শুধু মাত্র উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের জন্য।

১। ফোল্ডার অথবা ফাইল তৈরি করা

প্রথমে আপনার কম্পিউটারের C ড্রাইভে একটি নতুন ফোল্ডার খুলুন। আমি আমার ফোল্ডারটির নাম দিচ্ছি x এবং আপনি চাইলে আপনার পছন্দ মত যে কোন নাম ব্যবহার করতে পারেন।

হিডেন

 

এরপর আমি ফোল্ডারের মাঝে একটি টেক্সট ফাইল তৈরি করব, ধরুন টেক্সট ফাইলটির নাম দিলাম Passwords ।

হিডেন (3)

 

এখন আপনি এই ফোল্ডারের মাঝে যে কোন ফাইল রাখতে পারেন।

২। ফাইল হিডেন করার ক্ষেত্রেঃ

নিশ্চয়ই দেখেছেন যে আমি একটি ফাইল এবং একটি ফোল্ডার ক্রিয়েট করেছিলাম, তাই এখন আমি প্রথমে আপনাকে ফাইল এবং এরপর ফোল্ডার হাইড করার পদ্ধতি দেখাবো। আমি আগেই বলেছি এটি কিছুটা অ্যাডভান্স লেভেলের টিউটোরিয়াল তাই আমরা এই প্রক্রিয়ায় ফাইল বা ফোল্ডার হাইড করার ক্ষেত্রে এই ফাইল বা ফোল্ডার গুলোকে সিস্টেম ফাইলে রুপান্তরিত করব।

হিডেন (7)

 

উইন্ডোজ বাটন ক্লিক করে স্টার্ট মেন্যু থেকে Run সিলেক্ট করুন। Run ডায়লগ বক্স আসবে, এতে cmd টাইপ করে এন্টার চাপুন।

হিডেন (10)

 

আপনি Run থেকে cmd টাইপ না করেও সরাসরি উইন্ডোজের সার্চ বারে cmd লিখেও cmd prompt খুলতে পারেন। যাই হোক,

হিডেন (9)

 

এবার আপনি cd\x টাইপ করে এন্টার চাপুন। এই কমান্ডের মাধ্যমে আপনি ডিরেক্টরি পরিবর্তন করে x ফোল্ডারের মধ্যে এক্সেস করবেন।

হিডেন (2)

 

এবার টাইপ করুন attrib FILENAME.EXT +s +h । এখানে FILENAME এর ক্ষেত্রে আপনি যে ফাইলটি হাইড করতে চান তার নাম এবং EXT এর ক্ষেত্রে সেই ফাইলটির এক্সটেনশন লিখবেন। যেমন, x ফোল্ডারের মধ্যে আমি Passwords নামের একটি টেক্সট ফাইল খুলে রেখেছি যার এক্সটেনশন হচ্ছে txt তাই এই ক্ষেত্রে আমি লিখব,

attrib Passwords.txt +s +h

হিডেন (5)

 

বাস, আপনার ফাইলটি হিডেন হয়ে গেল। 🙂

৩। ফোল্ডার হাইড করার ক্ষেত্রেঃ

ফোল্ডার হাইড করার জন্য আবারো আমাদের কমান্ড প্রম্পট ব্যবহার করতে হবে। এবার আমরা cmd খোলার পর cd\ লিখে এন্টার চাপব।

হিডেন (6)

 

ডিরেক্টরি পরিবর্তন হয়ে রুটে চলে আসবে। এরপর টাইপ করব,

attrib x +s +h

প্রায় ফাইল হাইড করার মতই, শুধু ফোল্ডারে কোন প্রকার এক্সটেনশনের দরকার হচ্ছেনা।

হিডেন (8)

 

ব্যাস, আপনার ফাইল এবং ফোল্ডার সিস্টেম ফাইল হিসেবে হিডেন হয়ে গেল! এখন সহজেই যে কেউ আর আপনার সেই গোপন ফাইল গুলো এক্সেস করতে পারবেনা।

৪। আন-হাইড করার প্রক্রিয়াঃ

আন হাইড করার জন্য ফাইলের ক্ষেত্রে আপনাকে লিখতে হবে

attrib Passwords.txt -s -h

 

এবং ফোল্ডারের ক্ষেত্রে,

attrib x -s -h

অর্থাৎ, শুধুমাত্র + এর পরিবর্তে – ব্যবহার করলেই আপনি আবার ফাইল বা ফোল্ডারটি দেখতে পারবেন।

 

F.A.Q

প্রশ্নঃ C ড্রাইভ ছাড়া অন্য ড্রাইভে হবেনা?

উত্তরঃ অবশ্যই হবে, আপনি ইচ্ছে করলে পেন ড্রাইভেও একই প্রক্রিয়ায় ফাইল হাইড করতে পারবেন।

 

প্রশ্নঃ অন্য ড্রাইভের ক্ষেত্রে কী কী লিখতে হবে?

উত্তরঃ আমি C ড্রাইভে ফোল্ডারটি রেখেছিলাম। এখন আপনি যদি অন্য কোন ড্রাইভে এই কাজটি করতে চান তবে আপনাকে শুধু ড্রাইভ পরিবর্তন করতে হবে। ধরুন, আপনি D ড্রাইভে এই কাজটি করতে চাচ্ছেন তবে আপনাকে শুধু নিচের কোডটি লিখতে হবে cmd তে,

D:

ব্যাস, আপনার ড্রাইভ পরিবর্তন করতে হবে এবং অন্যন্য প্রসিডিউর গুলো একই।

 

প্রশ্নঃ ‘show hidden files’ এ টিক চিহ্ন দিলে কি এই প্রক্রিয়ায় হাইড করা ফাইল গুলো দেখা যাবে?

উত্তরঃ না, তবে এর নিচে থাকা ‘show hidden system files’ অপশনে ক্লিক করলে এই ফাইল গুলো দেখা যাবে।

 

শেষ কথাঃ

আশা করি এই পদ্ধতিটি আপনার কাজে আসবে। আপনারা যারা জানতেন না এখনই চেষ্টা করে দেখুন, কোন সমস্যা হলে মন্তব্যে করুন, যথা সাধ্য সাহায্য করতে চেষ্টা করব। ভালো থাকুন, যুগ টেকের সাথেই থাকুন।

হিডেন ফাইল, হিডেন ফোল্ডার,hiden,সিকিউরিটি+,অ্যাট্রিবিউট