যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক টেক জায়ান্ট অ্যাপলের জবাব দিল দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসাং। কিছুদিন আগেই স্যামসাং ধাতব বডির স্মার্টফোন ‘গ্যালাক্সি আলফা’ মডেলের ঘোষণা দিয়েছে। আর শীঘ্রই এটি বাজারে আসতে যাচ্ছে।

তবে অ্যাপল অনেক আগে থেকেই ধাতব বডির স্মার্টফোন বাজারজাত করে আসছে। ফলে নকলের অভিযোগে আঙ্গুল উঠেছে স্যামসাং-এর দিকে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
স্যামসাংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তারা অ্যাপলের স্মার্টফোন প্রযুক্তি নকল করে গ্যালাক্সি স্মার্টফোন বাজারে আনে। অন্যদিকে স্যামসাংও অ্যাপলের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ এনেছে। এ বিষয়টি নিয়ে দুই প্রতিষ্ঠান অনেকদিন ধরেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আইনি যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। মেটাল বডির স্মার্টফোনের বাজারে আনা নিয়ে স্যামসাংয়ের বিরুদ্ধে অ্যাপলকে নকল করার যে অভিযোগ উঠেছে, সে অভিযোগর জবাব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

অ্যাপল বনাম স্যামসাং

অ্যাপল বনাম স্যামসাং

 

স্যামসাং জানিয়েছে তারা অ্যাপলের মেটাল বডির স্মার্টফোনের ধারণাটি নকল করেনি। বরং অ্যাপল মেটাল বডির স্মার্টফোন বাজারে ছাড়ার আগেই স্যামাসং এধরনের স্মার্টফোন বাজারে ছেড়েছে। আর এ বিষয়টি তারা সবাইকে জানাতে চায়।

উল্লেখ্য যে, নকল সংক্রান্ত মামলায় নতুন করে এ দুই কোম্পানি আবার আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়েছিল গত বুধবার। তবে ওই দিন আদালত থেকে হাসি মুখে বেরিয়েছে স্যামসাং কর্মকর্তারা। কেননা প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপলের একটি নিষেধাজ্ঞার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত।

পেটেন্ট আইন লঙ্ঘন করে ডিজাইন নকল করে পণ্য তৈরি করায় স্যামসাংয়ের কিছু স্মার্টফোন বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা দিতে এ আবেদন করেছিল অ্যাপল। চলতি বছরের শুরুতে তিনটি পেটেন্ট মামলায় দক্ষিণ কোরিয়ান জায়ান্ট স্যামস্যাংয়ের বিরুদ্ধে জয় পায় অ্যাপল ও ১২০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ লাভ করে। এ রায়ের ভিত্তিতে পণ্য বিক্রি বন্ধে এ আবেদন করেছিল যুক্তরাষ্ট্রের টেক জায়ান্টটি। গত বুধবার ক্যালিফোর্নিয়ার সান জোসের বিচারক লুসি কোহ পেটেন্ট এ রায় দেন। শুনানিতে বিচারক লেখেন, স্যামসাং পেটেন্ট আইন ভাঙ্গলেও উদ্ভাবক হিসেবে অ্যাপল নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করতে পেরেছে। তবে নিষেধাজ্ঞার যৌক্তিক কারণ প্রমাণ করতে পারেনি কোম্পানিটি। নিষেধাজ্ঞার দেওয়া না হলে উদ্ভাবক হিসাবে অ্যাপল অনেক ক্ষতির মুখে পড়বে বা সুনামের অপূরণীয় ক্ষতি হবে তা প্রমাণ করতে পারেনি।

এক বিবৃতিতে স্যামস্যাং আদালতের রায়কে সাধুবাদ জানিয়ে বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের গ্রাহকদের জন্য পছন্দসই উদ্ভাবনী পণ্য নিয়ে আসতে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
স্যামসাং আরো জানায়, স্যামসাং আলফা-এর মেটাল বডির ধারণা নেওয়া হয়েছে কয়েক বছর আগে বের হওয়া স্যামসাংয়ের অন্য একটি ফোন ‘স্যামসাং কার্ড ফোন’ থেকে। গত ২০০৬ সালে সে ফোনটি বাজারে ছাড়ে স্যামসাং। উল্লেখ্য যে, অ্যাপলের আইফোন বাজারে আসার এক বছর আগে এ ফোনটি ছাড়া হয়।