আপনারা হয়তো ছবিতে দেখেছেন টাইম মেশিন এর মাধমে সময়ে ভ্রমন করতে। যারা সময়
ভ্রমন করে তারা সময় ভ্রমণকারী। আজ আপনাদের এমন ৫ জনকে দেখাবো যারা হয়তো সময় ভ্রমণকারী।

১. ১৯৪১ সালের সময় ভ্রমণকারী

 Time Traveler-muhammadshuvo.blogspot.com
উপরের যে ছবিটি দেখতে পাচ্ছেন, এই ছবিটি তোলা হয়েছিল ১৯৪১ সালে।
ক্যানাডার
South Forks Bridge এর পুনঃরায় চালু করার অনুষ্ঠানের সময়। ছবিটির ডান পাশে
সবুজ  চিহ্ন দেওয়া লোকটিকে  খেয়াল করে দেখুন, ১৯৪১ সালে কারো পোষাক এরকম হত
না
আর তার হাতে যে ক্যামেরা রয়েছে সেটি তৎকালীন ক্যামেরার তুলনায় অনেক বেশি
আধুনিক। তখনকার সময়ে এ রকম ক্যামেরা পাওয়া যেত না। এবার ছবিটির বাম দিকে
কমলা গোল চিহ্নের দিকে দেখুন এটা ছিল ১৯৪১ সালের
সর্বাধুনিক ক্যামেরা। তখন এ রকম ক্যামেরাই পাওয়া যেত।
time-traveler-closeup - muhammadshuvo.blogspot.com
 
 এই হল সেই সময়ভ্রমণকারী

২. ভন হেল্টন

ভন হেল্টন সময়ভ্রমণকারী - MuhammadShuvo.blogspot.com

উপরে পাশাপাশি যে চারটি ছবি দেখছেন বাম দিক থেকে তার প্রথমটি তোলা হয়
ইংল্যান্ডে ১৮৫৭ সালে, ২য়টি ১৯১৬ সালে ফ্রান্সে, ৩য়টি ১৯৪৫ সালে বার্লিনে
আর সব শেষের ছবিটি তোলা হয় তৎকালীন সময়ে। চারটি ছবিতে সম্ভাব্য ব্যাক্তির
নাম ভন হেল্টন (Von Helton)। তিনি নিজেই এই চারটি ছবি দিয়ে প্রমান করেন যে
তিনি সত্যিকার অর্থেই একজন সময় ভ্রমণকারী। অবশ্য অনেকের ধারনা ভন হেল্টন
আসলে একজন ভ্যাম্পায়ার। আর এ কারনেই তার উপর সময়ের করে প্রভাব পরে নাই। আর
যদি তিনি ভ্যাম্পায়ার না হয়ে থাকেন তাহলে সত্যিকার অর্থেই তিনি একজন সময়
ভ্রমণকারী।

৩. এন্ড্রু কার্লসেন

এন্ড্রু কার্লসেন সময় ভ্রমণকারী

শেয়ার বাজার সম্পর্কে যাদের ধারনা আছে তার নিশ্চই খুব ভাল মত জানেন যে কোন
শেয়ারের দাম কখন বাড়বে আর কখন কমবে তা জানা থাকলে খুব তাড়াতাড়ি বিত্তবান
হয়ে যাওয়া কোন ব্যাপার না। আজ আপনাদের এরকম একজনার সাথে পরিচয় করিয়ে দিব
যার নাম এন্ড্রু কার্লসেন (Andrew Carlssin)। এই এন্ড্রু কার্লসেন মাত্র
৮০০ ডলার দিয়ে বিনিয়োগ করে আমেরিকার শেয়ার বাজার Wall Street এ, আর কয়েক
মাসের মধ্যে তার অর্থের পরিমান দাঁড়ায় ৩৫০,০০০,০০০ মার্কিন ডলার। হঠাৎ করে
আয় হওয়া অর্থ দৃষ্টি আকর্ষন করে আইন শৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনীর। তারা আটক
করে এন্ড্রু কার্লসেনকে। আর তাদের জেরার মুখে এন্ড্রু কার্লসেন স্বীকার
করেন যে তিনি এসেছেন ২২৫৬ সাল থেকে। আর তিনি জানেন যে কোন শেয়ারের দাম
বাড়বে আর কোন শেয়ারের দাম কমবে। এই কারনেই তিনি সব লাভের শেয়ার কিনে ফেলেন।
সব থেকে অবাক করার বিষয় কোন কথা নেই বলা নেই একদিন তিনি উধাও হয়ে যান। কেউ
আর কোন দিন তার কোন খোঁজ পায়নি। উপরের ছবিটি সে সময়ের প্রত্রিকার।
 এন্ড্রু কার্লসেন সময় ভ্রমণকারীর পুরো সংবাদ
 এন্ড্রু কার্লসেন সময় ভ্রমণকারীর পুরো সংবাদ

৪. ১৯২৮ সালে মোবাইল ব্যাবহারকারী বৃদ্ধা মহিলা

অতীতের মোবাইল ব্যাবহারকারী মহিলা

১৯২৮ সালের কথা, এ সময়ের বিখ্যাত অভিনেতা চার্লি চ্যাপলিনের সিনেমা “The Circus
এর প্রিমিয়ার চলছে। এসময় সিনেমার সামনের গেটের সামনে বানানো
জিরাফের ভিডিও চিত্র তোলার সময় ধরা পরল এক বৃদ্ধা মহিলা। যিনি কিনা কানে
হাত দিয়ে কথা বলছেন। দেখলে সকলেই এক বাক্যে বলবেন, “বৃদ্ধা মহিলা মোবাইলে
কথা বলছেন”। একটু দাড়ান সালটা যে ১৯২৮, তখন কিন্তু মোবাইল আবিস্কার হয়নি।
তাহলে কি এই বৃদ্ধা মহিলা তার সাথে ঘুড়তে আসা অন্যান্ন সময় ভ্রমনকারীর সাথে
কথা বলছেন?
১৯২৮ সালে ধারনকৃত বৃদ্ধা মহিলার ভিডিওটিঃ

৫. হ্যাকান নোকোভিষ্ট

হ্যাকান নোকোভিষ্ সময় ভ্রমণকারী
হ্যাকান নোকোভিষ্ট (Hakan Nordqvist) একজন সাধারন ব্যাক্তি কিন্তু রাতারাতি
হয়ে যান একজন বিখ্যাত ব্যাক্তি। তিনি কিন্তু এখন পর্যন্ত সময় ভ্রমন করেনি,
কিন্তু তিনি দাবি করেন যে ভবিষ্যত থেকে ৭০ বছর বয়সের তিনি নিজেই
এসেছিলেন তার সাথে দেখা করতে। অনেকেই বলবেন নির্ঘাত মিথ্যা বলছে। হ্যাঁ তা
বলা যেত যদি না হ্যাকান নোকোভিষ্ট বুদ্ধিমানের মত একটা কাজ না করতেন। তিনি
তার ফোনে দিয়ে ৭০ বছর বয়স্ক হ্যাকান নোকোভিষ্ট এর সাথে ভিডিও তোলেন, আর
ভিডিওর মধ্যে তাদের দুজনার হাতেই একই ট্যাটু। এখন পর্যন্ত কেউ তার এই
ভিডিওকে মিথ্যা প্রমান করতে পারেনি, আর তার সাথের ব্যাক্তিকেও খুঁজে পাওয়া
সম্ভব হয়নি। তাহলে কি সত্যি সত্যি এসেছিলেন ৭০ বছর বয়স্ক হ্যাকান নোকোভিষ্ট
তার অতীতের হ্যাকান নোকোভিষ্ট এর সাথে দেখা করতে????????????????????????