আপনারা সকল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ক্রোমবুক সম্পর্কে নিশ্চয় শুনেছেন। এখন এটি কেনা উচিৎ কিনা,

এতে কি কমতি এবং সুবিধা রয়েছে ইত্যাদি প্রশ্নের উত্তর আমি এই পোস্টে বর্ণনা করতে চলেছি

গুগল ক্রোম ব্রাউজারের ১৯টি লুকায়িত ফিচার, শুধু মাত্র বসদের জন্য। (রেডিও এবং ডিজিটাল রেডিও যেভাবে কাজ করে? এএম, এফএম রেডিও বিস্তারিত) তো চলুন আলোচনায় প্রবেশ করা যাক।

ক্রোমবুক কি?

ক্রোমবুক (4)

 

এই প্রশ্নের উত্তরটি আমি এক কথায় দিতে পারতাম। কিন্তু দুই চার লাইন বেশি আলোচনা করলে আপনি তো বুঝবেনই এটি কি,

এবং সাথে এর প্রয়োজনীয়তাও বুঝতে পারবেন।

বন্ধুরা আমি জানি আমাদের মধ্যে এমন অনেক ইউজার রয়েছেন যারা তাদের ল্যাপটপ

বা ডেক্সটপ অন করেই যেকোনো একটি ওয়েব ব্রাউজারে প্রবেশ করে সারা সময় কাটিয়ে দেন।

আমরা আমাদের সকল যাবতীয় কাজ গুগল ক্রোম, মোজিলা ফায়ারফক্স বা মাইক্রোসফট এজ এর মধ্যেই করে থাকি।

যেমন নতুন মেইল চেক করা, ফেসবুক, টুইটার, অনলাইন থেকে নিউজ পড়া, টেকহাবস থেকে টেক আর্টিকেল পড়া ইত্যাদি।

বন্ধুরা দেখা যেতে পারে এমনও কেউ আছে তাকে যদি আপনি বলেন যে

আজ ইন্টারনেট কানেকশান বন্ধ থাকবে, তবে হয়তো সে তার ল্যাপটপ অনই করবে না।

কেনোনা আমাদের জন্য আজকের দিনে ইন্টারনেটের প্রয়োজনীয়তা সবচাইতে বেশি।

এবং ইন্টারনেটকে ব্যবহার করার জন্য আমরা ব্যাস একটি ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করে থাকি।

বন্ধু যদি আপনি আপনার সকল প্রয়োজন একটি ওয়েব ব্রাউজার দিয়েই মেটাতে পারেন তবে

আলাদা করে আপনার কম্পিউটারে উইন্ডোজ, ম্যাক, লিনাক্স থাকার প্রয়োজন কি?

আপনার কম্পিউটার যদি কোন অপারেটিং সিস্টেমে চলে তখন সর্বপ্রথম সেটি বুট করার প্রয়োজন হয়।

আপনি বসে থাকেন যে, কখন অন হবে, সকল প্রসেস সম্পূর্ণ হবে আর কখন আপনি ব্রাউজার ওপেন করে ইন্টারনেটে প্রবেশ করবেন।

এই অবস্থায় যদি আমি আপনাকে বলি যে, এমন একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ আছে যেখানে শুধু একটি ওয়েব ব্রাউজার আছে,

আর কোন আলাদা সফটওয়্যার নেই। আর এই কম্পিউটারটিই হলো ক্রোমবুক বা ক্রোম ওএস।

বন্ধুরা এটি গুগল দ্বারা প্রস্তুত করা এমন একটি সফটওয়্যার যা কোন ল্যাপটপে চলতে পারে

যেখানে আলাদা করে কোন সম্পূর্ণ অপারেটিং সিস্টেম যেমন উইন্ডোজ, ম্যাক, লিনাক্স ইত্যাদির প্রয়োজন পড়ে না।

ল্যাপটপটি শুধু ক্রোম ওএস ব্যবহার করে রান করতে পারে।

শুধু ক্রোমবুক খুলুন, খুলতেই ৫-৬ সেকেন্ডের মধ্যে এটি অন হয়ে যাবে এবার সরাসরি ক্রোমে ক্লিক করুন আর আপনার কাজ শুরু করুন।

ক্রোমবুক সত্যিই এক অসাধারন ধারণা। এবং পেছনের কয়েক বছর ধরে আজ পর্যন্ত এটি দিনের পড়ে দিন অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

চলুন বন্ধুরা এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠার কিছু কারন সমূহ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

ক্রোমবুক কেন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে?

ক্রোমবুক (2)

 

বন্ধুরা ক্রোমবুক এতো জনপ্রিয় হয়ে উঠার প্রধান কারন হলো এর দাম অনেক কম হয়ে থাকে।

অর্থাৎ আপনি যদি একটি ক্রোমবুক কিনতে চান তবে ১৫ হাজার থেকে শুরু করে ৩০ হাজারের মধ্যে একটি ভালো ক্রোমবুক আপনি কিনতে পারবেন।

এই ক্রোমবুক গুলোতে হার্ডওয়্যার অতটা উন্নত হয়ে থাকে না।

কেনোনা যেহেতু ঐ সিস্টেমে কোন উইন্ডোজ, লিনাক্স বা ম্যাক অপারেটিং সিস্টেম থাকে না, এবং

কেবল একটি ওয়েব ব্রাউজার ইন্সটল থাকে তাই খুব বেশি হার্ডওয়্যার প্রয়োজনও পড়ে না। তাই কম হার্ডওয়্যার এবং

বহুত স্টাইলিশ লুক নিয়ে আজকাল ক্রোম-বুক দেখতে পাওয়া যায়।

এছাড়া বন্ধুরা আরেকটি সুবিধা হলো, এতে ব্যাটারি লাইফ অনেক বেশি পাওয়া যায়।

কেনোনা এতে কোন আলাদা সফটওয়্যার ইন্সটল থাকে না এবং একটি ওয়েব ব্রাউজার এতো বেশি ব্যাটারি ক্ষয় করে না,

তাই অনেক বেশি ব্যাটারি লাইফ পাওয়া যায়। আর ক্রোমবুকের সবচাইতে ভালো কথা হলো এটির পারফর্মেন্স।

ক্রোমবুক গুলো অনেক বেশি ফাস্ট, লোডিং টাইম অনেক কম হয়ে থাকে। তাই এটি ব্যাবহারে স্মুথ এক্সপেরিএন্স পেতে পারেন আপনি।

আমি যদি বলি যে ক্রোম শুধু একটি ওয়েব ব্রাউজার, তবে আমার এটা বলা ভুল হবে।

আপনারা নিশ্চয় ক্রোমের ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন মার্কেট দেখেছেন। সেখানে ওয়ার্ড, এক্সেল সহ গুগলের সকল ছোট বড় অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন।

সামনের দিনে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ গুলোও ক্রোমবুকে ব্যবহার করা যাবে। যদিও এখনো ব্যবহার করা যায়।

আপনার কি ক্রোমবুক কেনা উচিৎ?

ক্রোমবুক (3)

 

বন্ধুরা সৎভাবে বলতে গেলে এটি সত্যিই একটি ভালো উপায় যদি আপনার বাজেট একটু কম হয়ে থাকে এবং আপনি শুধু বেসিক কাজ এবং ইন্টারনেট ব্রাউজ করার জন্য কোন ভালো ল্যাপটপ কিনতে চান তবে ক্রোমবুক আপনার জন্য সর্বউত্তম পছন্দ হতে পারে। মনে করুন আপনার ইউজেস খুব বেশি নয়। আপনি কোন স্পেশাল সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন না। যেমন ফটো এডিটিং, ভিডিও এডিটিং বা অডিও প্রসেসিং ইত্যাদি। তবে আপনি চোখ বন্ধ করে ক্রোমবুক কিনে ফেলতে পারেন।

আপনি নরমাল ব্রাউজিং, ব্লগিং, ওয়ার্ড, এক্সেল ইত্যাদি সবকাজ বড়ই সহজে ক্রোমবুকের সাহায্যে করতে পারবেন। আর যেহেতু এটি উইন্ডোজ দ্বারা পরিচালিত নয় তাই এটি প্রস্তুত করতে কোম্পানিকে কোন লাইসেন্স নিতে হয়নি। তাই ক্রোমবুক আপনি পেয়ে যান অনেক কম দামে। তাছাড়া আপনি যদি চান তবে পড়ে এতে উইন্ডোজ, উবুন্তু ইত্যাদি ইন্সটল করতে পারবেন, ফলে আপনি সেই মজাও নিতে পারবেন।

এছাড়াও বন্ধুরা আপনার ঘরে যদি অনেক পুরাতন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার থাকে যা আজকের অপারেটিং সিস্টেম গুলোতে ভালোভাবে কাজ করতে পারে না। আপনি চাইলে এই পুরাতন ডিভাইজ গুলোতেও ক্রোম ওএস ইন্সটল করতে পারবেন। এর পরে এই ডিভাইজ গুলো এক ধরনের ক্রোমবুকে পরিণত হয়ে যাবে এবং আপনি সেখানে খুব ভালোভাবে ব্রাউজিং করতে পারবেন।

শেষ কথা

বন্ধুরা আশা করছি ক্রোমবুক সম্পর্কে আপনি অনেক কিছু জানতে সক্ষম হয়েছেন। কম বাজেটের মধ্যে একটি ভালো ল্যাপটপ কিনতে চাইলে ক্রোমবুক আপনার জন্য বেস্ট হবে। আমার কথায় ধরুন, আমি যে কবে লাস্ট উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার খুলেছিলাম মনেই পরে না। ল্যাপটপ অন করে ব্যাস লিখতে বসে যাই এবং ক্রোম ওপেন করেই সকল কাজ সেরে ফেলি। ক্রোমবুক নিয়ে আপনার মতামত নিচে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আর পোস্টটি অবশ্যয় শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ ?