বাজারের হরেক রকম স্মার্টফোন এর ভীড়ে মানসম্পন্ন স্মার্টফোন কিনতে গিয়ে ক্রেতারা অনেক সময়ই পড়ছেন বিড়ম্বনায় ! এমন কিছু মডেলের স্মার্টফোন রয়েছে যেগুলোর ভালো বিকল্প অজানা থাকায় অনেক ক্রেতাই উচ্চমূল্যে অপেক্ষাকৃত নিম্নমানের স্মার্টফোন কিনে প্রতারিত হচ্ছেন ! আজ থাকছে ১০,০০০ টাকা থেকে ২০,০০০ টাকা বাজেটের মধ্যে থাকা এমন কিছু স্মার্টফোন সংক্রান্ত তথ্য, আর সেসবের বিকল্প তো থাকছেই !

নিম্নমানের স্মার্টফোন

প্রিমো জিএইচ+ :

স্বল্প বাজেটে ১ গিগাবাইট র‍্যামসহযোগে কোয়াডকোর স্মার্টফোন কিনতে আগ্রহীদের অনেকেই ১০,৯৯০ টাকা মূল্যের এই ফোনটি কিনে থাকেন। কিন্তু এই ফোনটির অন্যতম একটি সীমাবদ্ধতা হলো চালানোর সময় এটি প্রায়ই ল্যাগ করে। এছাড়া এর হোম বাটনটিও যথেষ্ট ত্রুটিপূর্ণ। এসবের পাশাপাশি মাল্টিটাস্কিংয়ের ক্ষেত্রেও অনেক সময় ঝামেলা পোহাতে হয়।

নিম্নমানের স্মার্টফোন

 

স্বল্প বাজেটে ১ গিগাবাইট র‍্যামসহযোগে কোয়াডকোর স্মার্টফোন কিনতে চাইলে আগ্রহীরা ৯,৪৯০ টাকা মূল্যের Primo GH2 স্মার্টফোন টি দেখতে পারেন। Primo GH+ এর মতোই এই ফোনটিতে রয়েছে কোয়াডকোর প্রসেসর, ১ গিগাবাইটের র‍্যাম, ৫ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা , ২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা প্রভৃতি। বলে রাখা ভালো, এই মূহুর্তে এর থেকে কমমূল্যে বাজারের আর কোন ফোনে কোয়াডকোর প্রসেসর ও ১ গিগাবাইট র‍্যাম পাওয়া যাবেনা। উল্লেখ্য, সম্প্রতি এই ফোনের জন্য কিটক্যাট আপডেট ছাড়া হয়েছে।

স্মার্টফোন (11)

 

এছাড়া যারা অপেক্ষাকৃত ভালো ক্যামেরা ও দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারী ব্যাকআপ সংবলিত স্মার্টফোন কিনতে চান তারা ৮ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরার Primo HM স্মার্টফোন টি কিনতে পারেন। ১১,৫৯০ টাকা মূল্যের এই ফোনে রয়েছে ৪,২০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী। এই ফোনের একটি উল্লেখযোগ্য দিক হলো একে পাওয়ার ব্যাংক হিসেবে ব্যবহার করা যায়, অর্থাৎ আপনি ক্যাবলের সাহায্যে এর  মাধ্যমে অন্য কোনে ফোনে চার্জ দিতে পারবেন।

ss

 

গ্যালাক্সী এস ডুয়োস ২ :

যারা সাধারণত কম বাজেটে ভালো মানের স্মার্টফোন কিনতে চান তাদের অনেকেই গ্যালাক্সী এস ডুয়োস ২ কিনতে আগ্রহী হোন। কিন্তু ১২,৫০০ টাকা মুল্যের এই স্মার্টফোন টিতে রয়েছে মাত্র ১ গিগাহার্টজের ডুয়েল কোর প্রসেসর ও ৭৬৮ মেগাবাইটের র‍্যাম। এই ফোনটির একটি উল্লেখযোগ্য সীমাবদ্ধতা হলো এতে এইচডি গেম খেলতে গেলে এটি অনেক সময়ই ল্যাগ করে। এছাড়া এতে ১০৮০ পি ভিডিও চালানো যায়না। ফলে যারা গেম খেলতে বেশ ভালবাসেন কিংবা এইচডি ভিডিও দেখার জন্য স্মার্টফোন কিনতে চান তাদের জন্য এই ফোন না কেনাই শ্রেয়। তদুপরি এই ফোনটিতে মাত্র ১৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী ব্যবহার করায় এর ব্যাটারী ব্যাকআপও খুব একটা ভালো নয়।

স্মার্টফোন (6)

 

যারা অপেক্ষাকৃত ভালো পারফরম্যান্স চান তারা এর থেকে আরেকটু বাজেট বাড়িয়ে ১৪,৫০০ টাকা দিয়ে এক্সপেরিয়া এম ডুয়েল স্মার্টফোন টি কিনতে পারেন। এই ফোনে রয়েছে ১ গিগাবাইটের র‍্যাম, স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট, অ্যাড্রেনো ৩০৫ জিপিউ প্রভৃতি। এছাড়া এর ব্যাটারী ১,৭৫০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের।

 

এক্সপ্লোরার ডব্লিউ-১৪০:

৫ ইঞ্চি আইপিএস ডিসপ্লের এই ফোনে BSI সেন্সরযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা ব্যতীত আর কোন উল্লেখযোগ্য দিক নেই। এর পারফরম্যান্স কিছুটা ল্যাগি। এছাড়া এতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে কিছুটা পুরনো অ্যান্ড্রয়েড ৪.২.১ জেলিবিন ব্যবহার করা হয়েছে। ১২,৯৯০ টাকা মূল্যের এই ফোনে রয়েছে ১.২ গিগাহার্টজের কোয়াডকোর প্রসেসর, ১.২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা ও ৪ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরী।

স্মার্টফোন (9)

 

আপগ্রেডেড অপারেটিং সিস্টেম ও অপেক্ষাকৃত ভালো কনফিগারেশনের স্মার্টফোন কিনতে চাইলে Xplorer W140 না কিনে ১২,৫৯০ টাকা মূল্যের Xplorer H100 কেনাই উত্তম। এক্সপ্লোরার এইচ-১০০ স্মার্টফোন টিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট ব্যবহার করা হয়েছে, এছাড়া এতে ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরার পাশাপাশি রয়েছে ২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা, ১.৩ গিগাহার্টজের কোয়াডকোর প্রসেসর  ও ৮ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরী।

স্মার্টফোন

 

নোকিয়া এক্সএলঃ

অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর স্মার্টফোন আনছে নোকিয়া – এমন ঘোষণার পর থেকেই অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন এ  নতুন কী চমক দেখায় নোকিয়া তার জন্য প্রযুক্তিপ্রেমীরা বেশ আগ্রহী ছিলেন । কিন্তু নোকিয়ার অ্যান্ড্রয়েড সিরিজের প্রথম স্মার্টফোন নোকিয়া এক্স বাজারে আসার পর এর কনফিগারেশন ও পারফরম্যান্স দেখে অনেকেই হতাশ হোন। নোকিয়া এক্স অপেক্ষা খানিকটা উন্নত কনফিগারেশনের নোকিয়া এক্সএল বাজারে আসার পর অনেকেই তাই এই ফোনটি কিনতে চান । কিন্তু ১৩,৯৯০ টাকা মূল্যের এই স্মার্টফোন টিও ক্রেতাদের প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ ! এই ফোনটির কিছু উল্লেখযোগ্য সীমাবদ্ধতা হলো –

  • নিম্নমানের স্ক্রীন রেজ্যুলেশন (পিক্সেল ডেনসিটি বা PPI মাত্র ১৮৭)
  • তুলনামূলক ভারী (১৯০ গ্রাম)
  • অ্যান্ড্রয়েডের পুরনো ভার্সন (অ্যান্ড্রয়েড ৪.১.২ জেলিবিন)
  • নিম্নমানের ভিডিও রেকর্ডিং কোয়ালিটি  (মাত্র ৪৮০ পিক্সেল)

স্মার্টফোন (3)

 

এসবের পাশাপাশি এই ফোনে মাত্র ৭৬৮ মেগাবাইটের র‍্যাম ব্যবহৃত হয়েছে, এছাড়া এতে রয়েছে খানিকটা পুরনো জিপিউ অ্যাড্রেনো-২০৩ । এই ফোন কিনে অযথাই টাকা নষ্ট না করে ভালো ক্যামেরা পারফরম্যান্স, উন্নত চিপসেট ও শক্তিশালী জিপিউসমৃদ্ধ স্মার্টফোন কিনতে চাইলে এর থেকে একটু বাজেট বাড়িয়ে ১৫,৫০০ টাকা দিয়ে এক্সপেরিয়া এল স্মার্টফোন টি কিনতে পারেন। এই ফোনটিতে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা, ১ গিগাবাইটের র‍্যাম, স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট, অ্যাড্রেনো ৩০৫ জিপিউ প্রভৃতি।

স্মার্টফোন (1)

 

গ্যালাক্সী কোরঃ

মধ্যম বাজেটের এই স্মার্টফোন টির পারফরম্যান্স এর মূল্যের তুলনায় সন্তোষজনক নয়। ১৮,৯৯০ টাকা মূল্যের Galaxy Core এ ডুয়েলকোর কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন প্রসেসর ও অ্যাড্রেনো ২০৩ জিপিউ ব্যবহার করা হলেও এতে এইচডি গেম খেলার সময় ল্যাগ করে। এছাড়া অনেক সময় এই ফোনে এইচডি ভিডিও প্লেব্যাক করা যায়না। এই ফোনের ব্যাটারী ব্যাকআপও বেশ দুর্বল।

 

 

আপগ্রেডেড অপারেটিং সিস্টেম, দ্রুতগতির প্রসেসর, অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী ব্যাটারী ব্যাকআপ প্রভৃতি ফিচার সংবলিত স্মার্টফোন কিনতে চাইলে ১৬,৫০০ টাকা মূল্যের গ্যালাক্সী কোর ২ স্মার্টফোন টি বেছে নিতে পারেন, যাতে আছে অ্যান্ড্রয়েড কিটক্যাট, কোয়াডকোর প্রসেসর, ২০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী প্রভৃতি ।

স্মার্টফোন (5)

 

আর বাজেট খানিকটা বাড়াতে পারলে কর্নিংয়ের গরিলা গ্লাস ৩ সমৃদ্ধ ৪.৫ ইঞ্চি আইপিএস ডিসপ্লের মটোরোলা মটো জি স্মার্টফোন টিও দেখতে পারেন। ১৭,৫০০ টাকা মূল্যের এই ফোনে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৪০০ চিপসেটসমৃদ্ধ কোয়াডকোর প্রসেসর, ১ গিগাবাইটের র‍্যাম, শক্তিশালী অ্যাড্রেনো ৩০৫ জিপিউ, ২০৭০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারী প্রভৃতি ।

স্মার্টফোন (2)

 

আজ এপর্যন্তই। পোস্ট সংক্রান্ত আপনার মূল্যবান মন্তব্য/পরামর্শ কমেন্টে জানাতে ভুলবেননা। সবাই ভালো থাকুন আর পরবর্তী পর্বের জন্য চোখ রাখুন যুগটেকে।