এক সময় ছিল যে আমাদের দেশের মানুষ নোকিয়া ছাড়া যে ফোন হতে পারে তা নিয়ে কল্পনাও করতে পারত না। সে সময়টা ছিল এই কম্পানিটির পক্ষে স্বর্ণযুগ। আমাদের দেশের মত ইন্ডিয়া সহ সকল উন্নয়নশীল দেশে ছিল এর সমান কদর। পরবর্তীতে অ্যান্ড্রয়েড ও অন্যান্য সকল স্মার্ট ফোন এসে এর যায়গা দখল করে নেয়। আর নিবেই না কেন সব থেকে অল্প মূল্যের অধিক ফিচার সম্বলিত ফোন বানাতে সক্ষম হয় এই গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড প্রোডাক্ট। অ্যান্ড্রয়েড এর পৃথিবী ব্যাপী জনপ্রিয়তা দেখে অনেক ব্যয়বহুল আইফনও তাদের দাম কমাতে বাধ্য হয়। শুরুর ত্থেকেই বাজিমাত করে আসছে গুগল এর সব থেকে চাহিদাপূর্ন প্রোডাক্ট অ্যান্ড্রয়েড। নিত্য নতুন ফিচার এই তারা একের পর এক আপগ্রেড ভার্সন ছারছে। আগের তুলনায় আরও স্মার্ট আরও শক্তিশালি। তাই নোকিয়াও তাদের নিজেদের অপারেটিং সিস্টেম সিম্বিয়ান রেখে এখন ঝুঁকে পরেছে অ্যান্ড্রয়েড এর দিকে।

দুটি অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে আসছে নোকিয়া

নোকিয়া দুটি অপারেটিং সিস্টেম

 

কালের বিবর্তনে যুগের সাথে সাথে আজ নোকিয়াও উপলব্ধি করতে পেরেছে যে মার্কেট ধরে রাখতে অ্যান্ড্রয়েড এর কোন বিকল্প নেই। বুঝতে পারার পাশা পাশি তারা একি সাথে দুটি অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করতে ইচ্ছুক হয়েছে। যদিও মাইক্রোসফট এর উইন্ডোজ ওএস অপেক্ষাকৃত কম শক্তিশালি নয়। তাদেরও আছে নিজস্ব মার্কেট ভ্যালু। অবাক করার মতই মার্কেট কাপাতে নোকিয়া নিয়েছে তাদের ভিন্নধর্মী উদ্যগ। সাধারণ ক্রেতা সম্প্রদায় নোকিয়ার এই অভাবনীয় উদ্যগকে স্বাগত জানায় । মাইক্রোসফট কোম্পানি নোকিয়ার পন্য ব্যবসা ৭.২ মার্কিন ডলারের বিনিয়োগে কিনে নেওয়ার পর ২০১৪ সালের প্রথম থেকে নোকিয়া তাদের নিজস্ব ডিভাইস তৈরি বন্ধ করে দেয়। কিন্তু এ বছরের প্রথম দিকে নোকিয়া নিশ্চিত করে যে ২০১৬ সালে আবারও স্মার্টফোন ডিভাইস মার্কেটপ্লেস এ নিয়ে আসছে। তবে নোকিয়ার নতুন এই স্মার্টফোন সম্পর্কে এখনও খুব বেশি কিছু জানা যায়নি। প্রকাশিত ছবিতে অ্যান্ড্রয়েড এবং উইন্ডোজ, এই দুই অপারেটিং সিস্টেম থাকারই ইশারা রয়েছে। তার ফলস্বরূপ ফোনটিতে ডুয়েল বুট অপশন থাকবে নাকি দুটি অপারেটিং সিস্টেমের আলাদা দুটি ভ্যারিয়েন্ট বাজারে আসবে, সে ব্যাপারটি নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।  উল্লেখ্য যে, মাইক্রোসফটের অধিগ্রহণের পর নোকিয়া কয়েকটি দেশের বাজারে অ্যান্ড্রয়েড চালিত একটি ট্যাবলেট বাজারজাত করেছিলো যা ক্রেতাদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে।

1 COMMENT

  1. আদৌকি সম্ভব এরকম যৌথ প্রযোজনায় সেট মার্কেটে আনা? তাহলে তো মেক্সিমাম ব্রান্ডেরি মনে হয় লোকসান গুণতে হবে। কারন এখন সবারি নোকিয়া প্রিতি রয়েছে। তারপর আবার একি প্লাটফর্ম এ দুইটি ওএস সত্যি এমেজিং 🙂