উইন্ডোজ ১০ রিলিজ হওয়ার পরেই ডাউনলোড এর ধুম পড়ে গেছে। অনেকেই এর মাঝে ডাউনলোড এবং ইনস্টল করে বসে আছে। কিন্তু বাংলার মানুষ যতো আগেই ডাউনলোড এবং ইনস্টল করুক না কেন এখনো কিন্তু তারা সেই ট্রায়াল ভার্সনেই পড়ে আছে। যুগটেকে আজকের উইন্ডোজ ১০ এর ডাউনলোড নিয়ে যতো পোস্টকরা হয়েছে সেগুলোর কমেন্ট সেকশন দেখলে বুঝা যায় ট্রায়াল নিয়েও অনেকে বিভ্রান্ত! উইন্ডোজ চালু হওয়ার পরে একটিভেশন উইন্ডোজ আসলেও অনেকের পিলে চমকে যায়!  যাহোক, সমস্যা যেখানে আছে সমাধান সেখানে থাকবেই। আর যুগটেক যে দেশে আছে সেখানে প্রযুক্তি বিষয়ক সমস্যা থাকার তো প্রশ্নই আসে না। আজ যুগটেকের এই নগন্য লেখক আপনারকে বিনামূল্যে সারা জীবনের জন্য উইন্ডোজ ১০ একটিভেশনের প্রক্রিয়া দেখাবে। তবে লেখকরা খুব ভালো করেই জানেন যে যুগটেকে অভিজ্ঞরা যেমন আছে ঠিক তেমনি অ্যামেচারও অনেকে আছে। সুতরাং আজকের পোস্টে উইন্ডোজ ১০ একটিভেশনের দুটি পদ্ধতি দেখানো হবে। যার কাছে যেটা সহজ মনে হবে সে সেটা করবে।

উইন্ডোজ ১০ – পারমানেন্ট একটিভেশন

আমরা উইন্ডোজ ১০ কে আজ দুইভাবে একটিভেট করার প্রক্রিয়া দেখাবো। প্রথম প্রক্রিয়ায় থাকবে কমান্ড প্রম্পট ব্যবহার করে উইন্ডোজ ১০ একটিভেশন এবং দ্বিতীয় প্রক্রিয়ায় থাকবে মাইক্রোসফট KMS (Key Management Server) হ্যাকিং সফটওয়্যার দিয়ে একটিভেশন। আমরা যেহেতু মাইক্রোসফট KMS ব্যবহার করে উইন্ডোজ একটিভেট করবো সেহেতু উইন্ডোজ সিকিউরিটির জন্য এই KMS এর Meaning মজা করে Kill My Self বললেও বলতে পারেন। যাহোক, যে প্রক্রিয়াতেই উইন্ডোজ একটিভেট করেন না কেন আপনার প্রয়োজন হবে উইন্ডোজ ১০ এর অরিজিনাল সিরিয়াল নাম্বার। চিন্তার কিছু নেই, নিচের সারণী হতে আপনার উইন্ডোজ ১০ এর ভার্সন অনুযায়ী যার যে সিরিয়াল প্রয়োজন বেছে নিতে পারেন।

Operating System Edition KMS Client Setup Key
Windows 10 Professional W269N-WFGWX-YVC9B-4J6C9-T83GX
Windows 10 Professional N MH37W-N47XK-V7XM9-C7227-GCQG9
Windows 10 Enterprise NPPR9-FWDCX-D2C8J-H872K-2YT43
Windows 10 Enterprise N DPH2V-TTNVB-4X9Q3-TJR4H-KHJW4
Windows 10 Education NW6C2-QMPVW-D7KKK-3GKT6-VCFB2
Windows 10 Education N 2WH4N-8QGBV-H22JP-CT43Q-MDWWJ
Windows 10 Enterprise 2015 LTSB WNMTR-4C88C-JK8YV-HQ7T2-76DF9
Windows 10 Enterprise 2015 LTSB N 2F77B-TNFGY-69QQF-B8YKP-D69TJ

আপনি যদি উইন্ডোজ ১০ নতুন করে ইনস্টল দেন তাহলে উপরের দেওয়া সিরিয়াল নাম্বারগুলো ব্যবহার করে উইন্ডোজ ইনস্টল করুন। না হলে পরবর্তি একটিভেশনে ঝামেলা হতে পারে। এই সিরিয়ালগুলো দিয়েই আমরা উইন্ডোজ ১০ এর পারমানেন্ট একটিভেশন দেখাবো। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

উইন্ডোজ ১০ – কমান্ড প্রম্পট এর সাহায্যে একটিভেশন

এই প্রক্রিয়াটা মূলত অভিজ্ঞদের জন্য কিংবা যারা অজানাকে জানতে উৎসুক তাদের জন্য। এই প্রক্রিয়ায় যেকোন ভার্সনের উইন্ডোজ ১০ একটিভেট করা যাবে। আমি আমার উইন্ডোজ ১০ প্রো ৩২ বিট ইনস্টল করে দেখাচ্ছি। আপনারা আপনাদের মতো করে একটিভেট করবেন। একটিভেশন প্রক্রিয়া স্টেপ বাই স্টেপ দেখানো হলো। আশা করি মনযোগ সহকারে দেখবেন এবং নিজে সফলভাবে করবেন।

  • প্রথমে স্টার্ট মেনু হতে কমান্ড প্রম্পটটি এডমিন হিসাবে রান করুন।

উইন্ডোজ ১০ (1)

 

  • এবার কমান্ড প্রম্পটি নিচের মতো চিত্র দেখতে পারবেন।

উইন্ডোজ ১০ (2)

 

  • এবার পোস্ট থেকে slmgr /ipk W269N-WFGWX-YVC9B-4J6C9-T83GX লেখাটি কপি করুন। এখানে দেখুন লাল চিহিৃত অংশটি হলো সিরিয়াল নাম্বার। আপনি যে ভার্সনটি একটিভেট করতে চান উপরের সারণী হতে সেই ভার্সনের সিরিয়াল নাম্বার এখানে বসাতে হবে। এবার কপি করা লেখাটি কমান্ড লাইনে পেস্ট করুন এবং এন্টার চাপুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন তাহলে নিচের মতো সাক্সেসফুল উইন্ডো আসবে।

উইন্ডোজ ১০ (3)

 

  • এবার পোস্ট থেকে slmgr /skms kms.xspace.in লেখাটি কপি করুন এবং কমান্ড লাইনে পেস্ট করুন এবং এন্টার চাপুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন তাহলে নিচের মতো সাক্সেসফুল উইন্ডো আসবে।

উইন্ডোজ ১০ (4)

 

  • এবার পোস্ট থেকে slmgr /ato লেখাটি কপি করুন এবং কমান্ড লাইনে পেস্ট করুন এবং এন্টার চাপুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন তাহলে নিচের চিত্রের মতো উইন্ডোজ একটিভেশন সাক্সেসফুল দেখাবে।

উইন্ডোজ ১০ (5)

 

  • এতো সহজেই একটিভেশন কমপ্লিট হতে পারে এটা বিশ্বাস না হলে কম্পিউটার এর প্রোপাটিস বের করুন এবং দেখুন উইন্ডোজ একটিভেট হয়েছে। এতো দামী উইন্ডোজ সহজেই একটিভেট করে দিলাম, আমার জন্য তাহলে কী থাকছে?

উইন্ডোজ ১০ (6)

 

এই সহজ প্রক্রিয়াটাও যদি আপনাদের বোধগম্য না হয় তাহলে আপনার জন্য রয়েছে আরও এক পদ্ধতি। এটা পানির মতো সহজ কারন এর সাথে রয়েছে বরাবরের মতো আমার দেওয়া মেডিসিন ফাইল। যেটা দিয়ে এমন কোন রোগ নেই যেটা ছাড়েনি। আজও তার ব্যতিক্রম হবে না আশা করি।

উইন্ডোজ ১০ – মেডিসিন ফাইলের সাহায্যে একটিভেশন

এবার উইন্ডোজ ১০ এর জন্য এখানে ক্লিক করে মেডিসিন ফাইলটি ডাউনলোড করে নিন। তারপর সেটাকে এডমিন হিসাবে রান করুন। নিচের চিত্রের মতো উইন্ডো দেখতে পাবেন। এবার জাস্ট একটিভেট উইন্ডোজ বাটনে ক্লিক করুন এবং কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। তাহলেই দেখবেন উইন্ডোজ একটিভেট হয়ে গেছে।

উইন্ডোজ ১০ (7)

 

আশা করছি এই পোস্ট যারা পড়ছেন তারা সবাই উইন্ডোজ ১০ সফলভাবে একটিভেট করতে পেরেছেন। ভবিষ্যতেও কোন প্রকার সমস্যা ছাড়ায় একটিভেট করতে পারবেন বলে আশা রাখি। পোস্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করার মাধ্যমে সবাইকে বিষয়টা জানার এবং উইন্ডোজ সহজভাবে একটিভেট করার সুযোগ করে দিন।

উইন্ডোজ ১০ – সব ভার্সন ডাউনলোড লিংক

উইন্ডোজ ১০ তো একটিভেশনের সিস্টেম দেখালাম কিন্তু অনেকের কাছে হয়তো উইন্ডোজ ১০ এর ISO ফাইলটাই নাই। পোস্টটি পাবলিশড করার পরে ফেইসবুকে কয়েকজন আমার কাছে ডাউনলোড লিংক চেয়েছেন। তাই পোস্টে ডাউনলোড লিংক দিয়ে দিলাম। ফাইলগুলো আমার নিজের আপলোড করা না। ওনহেক্স নামের একটা ওয়েব সাইট হতে লিংক গুলো সংগ্রহ করেছি। তাদের দাবি লিংকগুলো মাইক্রোসফট প্রদত্ত। তাই ডাউনলোড নিয়ে আপাততো ভাবতে হবে না।

অফিশিয়াল ডাউনলোড লিংক

উইন্ডোজ ১০ সংস্করণ ৩২ বিট এর জন্য ৬৪ বিট এর জন্য
Windows 10 Home অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল / Mirror অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল / Mirror
Windows 10 Pro অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল / Mirror অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল / Mirror
Windows 10 Enterprise অফিশিয়াল ডাউনলোড পেইজ

ডাইরেক্ট ডাউনলোড লিংক

উইন্ডোজ ১০ সংস্করণ ৩২ বিট এর জন্য ৬৪ বিট এর জন্য
Windows 10 Home অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল ব্যবহার করুন অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল ব্যবহার করুন
Windows 10 Pro অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল ব্যবহার করুন অফিশিয়াল ডাউনলোড টুল ব্যবহার করুন
Windows 10 Enterprise Download (2.72 GB) Download (3.67 GB)

বি.দ্র: ডাউনলোড টুলটি মাইক্রোসফট এর অফিশিয়াল ডাউনলোড টুলস। সুতরাং এটি নিয়ে বেশি দুঃচিন্তা করতে হবে না। তো নিশ্চিন্তে ডাউনলোড করতে থাকুন। যারা টরেন্ট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন তারা নিচের টরেন্ট ডাউনলোড লিংকগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

টরেন্ট ডাউনলোড লিংক

উইন্ডোজ ১০ সংস্করণ ৩২ বিট এর জন্য ৬৪ বিট এর জন্য
Windows 10 Home Download (2.93 GB) Download (3.81 GB)
Windows 10 Pro Download (2.94 GB) Download (3.79 GB)
Windows 10 Enterprise Download (2.72 GB) Download (3.67 GB)
Windows 10 Education Download (2.72 GB) Download (3.67 GB)

উইন্ডোজ ১০ সম্পর্কে আরও এক্সক্লুসিভ সব তথ্য জানতে দেখুন

  • আপনার কম্পিউটার এর হার্ডওয়্যারগুলো কি উইন্ডোজ ১০ এর জন্য উপযোগি? ISO ডাউনলোড ও অপারেটিং সিস্টেম আপগ্রেডেশনে পণ্ডশ্রম হওয়ার আগেই দেখুন A-Z মেগা পোস্ট!

  • উইন্ডোজ ১০ ফাইনাল রিলিজ হলেই কি মাইগ্রেট করা উচিত? সুবিধা অসুবিধাগুলো জানতে হবে না?

  • বিষ্ময়কর হলোগ্রাফিক প্রযুক্তি! আপনার পৃথিবীকে দেখুন এবার নতুনরূপে, নতুনভাবে!! বাস্তবতা আজ কল্পনাকে হার মানাবে!!!

শেষ কথা

পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে অথবা বুঝতে যদি কোন রকম সমস্যা হয় তাহলে আমাকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। কারন আপনাদের যেকোন মতামত আমাকে সংশোধিত হতে এবং আরো ভালো মানের পোস্ট করতে উৎসাহিত করবে। আর পোস্টটিকে মৌলিক মনে হলে এবং নির্বাচিত পোস্ট হওয়ার উপযুক্ত মনে হলে প্রিয়তে যোগ দিতে ভুলে যাবে না যেন। সর্বশেষ যে কথাটি বলবো, আসুন আমরা কপি পেস্ট করা বর্জন করি এবং অপরকেও কপি পেস্ট পোস্ট করতে নিরুৎসাহিত করি। সবার সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করে আজ এখানেই শেষ করছি। দেখা হবে আগামী পোস্টে।