মাইক্রোসফট এর প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস এবার তার মুখ খুললেন। এই ঘটনার দারুণ জানা গেলো তিনিও এক সময় ব্যক্তিগত স্বার্থে হ্যাকিং করতেন। সব থেকে বড় কথা হচ্ছে তিনি এসকল কাজ গুলো করতেন শুধু মাত্র মেয়েদের সাথে দেখা করার জন্য। তিনি তার তরুন সময়টাতে এইসকল কর্মকান্ড করে রিতিমত মেয়েদের সাথে দেখা করার পথ উন্মুক্ত করতেন। যেহেতু বন্দু মহলে সবাই জানত যে সে এই ব্যপারে পটি সুতরাং কোন সমস্যা হলেই তারি ডাক পরতো। মানতে হবে তিনি ওইসময়টাতেই এরকম ভাবনা করে বেড়াতেন তবে উল্লেখযোগ্য যে তিনি ঠান্ডা চিত্যের মানুষ হলেও গাড়ি চালানোর সময় তিনি ছিলেন উগ্রপন্থী।

মেয়েদের কম্পিউটার হ্যাক করতো বিল গেটস

কম্পিউটার হ্যাক

মাইক্রোসফটের দুই সহপ্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস এবং পল অ্যালেনের বন্ধুত্ব হয় ওয়াশিংটন ডি.সি’র সিয়াটলের লেকসাইড স্কুলে পড়ার সময়। বিল গেটস পল অ্যালেন থেকে ২ বছরের নিজের ক্লাসে পড়লেও দু’জনের কম্পিউটার প্রীতি তাদের মধ্যে সুসম্পর্ক তৈরি করে। আর দুজনে মিলে প্রায়ই স্কুলে পড়াকালীন বিভিন্ন কম্পিউটার হ্যাক করত। মজার ব্যাপার হলো, বিল গেটসের সাথে ক্লাসের মেয়েদের কথা বলার সুযোগ করে দেওয়ার জন্যই কম্পিউটার হ্যাক করার ফন্দি আঁটত তারা। সম্প্রতি বিবিসি রেডিওতে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এ কথা স্বীকার করেন গেটস। তবে তাতে তেমন একটা সুবিধা করতে পারেননি বিল।  বিবিসি’তে দেওয়া সাক্ষাতকারে বিল বলেন, ‘পল আমার সাথে বলে কম্পিউটার সিডিউলিং করত। কিন্তু আমার থেকে দু’বছরের বড় হওয়ায় স্কুল থেকে কলেজে পা দেয় পল। আর তখন আমি একাই কম্পিউটার ঠিক করে দেওয়ার সুবাদে সুন্দরী মেয়েদের সাথে বসার সুযোগ পেতাম। তবে আমি যে তাদের সাথে খুব একটা কথা বলতাম তা কিন্তু নয়, তারা শুধু আমার পাশে বসে থাকত। আমার মনে হয়, আমি মেয়েদের সাথে কলা বলায় তেমন পারদর্শী ছিলাম না। তবে হার্ভাডে যাওয়ার পর আমি কিছুটা সামাজিক হয়েছিলাম। তবে মেয়েদের সাথে কথা বলার ক্ষেত্রে আমি কিছুটা অপটু।’

আমার জানা হ্যাকিং মহলে অনেক মিত্র আছে যারা বিলের পথ অনুসরণ করছে। আর স্বভাবতই মেয়েদের কম্পিউটার জ্ঞান একটু খীণ হয় তাই এই সুযোগ আগেইও ছাড়েননি বিল এবং তার ভক্ত সমাজের বর্তামান হ্যাকারাও ছেরে দিবেন এরকমটি আশাকরা কষ্টসাধ্য। সো আপুরা সাবধান আপনার পাশের বন্ধু মহলের হ্যাকাররা হয়তো এরকম কোন চিন্তা ভাবনা নিয়ে আপনার কম্পিউটার হ্যাক করতে পারে।