পৃথিবীর শীর্ষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ দুনিয়া জুড়ে

ফ্রি ইন্টারনেট

সেবা দেওয়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। এ জন্য তিনি আলাদা করে প্রতিষ্ঠা করেছেন ইন্টারনেট.ওআরজি (www.internet.org) নামের একটি কোম্পানি। ইতোমধ্যে আফ্রিকার দেশ জাম্বিয়ায় এ ফ্রি সেবা চালু করা হয়েছে। পরবর্তী ধাপে ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশেও দেওয়া হবে বিনামূল্যে ইন্টারনেট ভারতীয় টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান এয়ারটেল বাংলাদেশে ফেসবুকের ফ্রি ইন্টারনেট দেওয়ার মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে। এ জন্য এয়ারটেলের সাথে চুক্তি করেছে ইন্টারনেট.ওআরজি

তবে ফেসবুকের ফ্রি ইন্টারনেট বাংলাদেশে আসার আগেই এ দেশের মানুষদের ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করার জন্য সরকার নানান পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইথের দাম দফায় দফায় কমিয়ে এখন ২ হাজার ৮শ’ টাকা করা হয়েছে। যাতে গ্রামের সাধারণ মানুষও এই সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় তার জন্য সারাদেশে ইন্টারনেটের কানেটিভিটি বাড়ানোর জন্য ৪ হাজার ৮শ’ কিলোমিটার ফাইবার অপটিক কেবল স্থাপন করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রেখে ব্যান্ডউইথের দামও কমানো হচ্ছে। সরকারী-বেসরকারী এবং ডাটা কানেকটিভিটি, ইন্টারনেটসফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ বিষয়ে ইতোমধ্যে অবহিত করা হয়েছে।

তবে গ্রাহক পর্যায়ে সরকারের এই উদ্যোগের ব্যাপারে নানান অভিযোগ পাওয়া যায়। সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সুবিধা দেয়ার পরও রহস্যজনকভাবে ইন্টারনেটের দাম কমাচ্ছে না ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডররা (আইএসপি)। তারা বলছে, সারাদেশে সুলভে উচ্চমানের ইন্টারনেটর সেবা না পৌঁছার প্রধান কারণ হচ্ছে দেশজুড়ে ফাইবার অপটিক ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্কের স্বল্পতা রয়েছে। এ বিষয়ে সরকারী বিনিয়োগ কম। তেমনি অনেক জায়গায় বাজার এবং অবকাঠামো না থাকায় বেসরকারী খাতেও যথাযথ বিনিয়োগ হচ্ছে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সরকার দেশব্যাপী ইন্টারনেট সুবিধা চালু করার জন্য একটি নীতিমালা করার চিন্তা করছে। এ জন্য বিটিসিএল আরও ৪ হাজার ৮শ’ কিলোমিটার ফাইবার অপটিক ক্যাবল স্থাপন করতে যাচ্ছে। এ ছাড়া বেসরকারী পর্যায়ে উদ্যোক্তাদের মধ্যে ২টি এনটিটিএন কোম্পানির পরিবর্তে আরও দুই তিনটি এনটিটিএন (ন্যাশন ওয়াইড টেলিকম নেটওয়ার্ক) দেয়ার বিষয়টিও ভাবা হচ্ছে। সারাদেশে সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টির জন্য ইন্টারনেট এর দাম সম্ভাব্য সর্বনিম্ন পর্যায়ে নামিয়ে অনবে বিটিআরসি। তাছাড়া সারাদেশ ওয়াইফাই নেটওয়ার্কের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। প্রাথমিক পর্যায়ে এক লাখ জনবহুল এলাকায় ওয়াইফাই কানেকশন দেয়া হবে। সরকারের এ ঘোষণার বাস্তবায়ন শুরু করলেও এখন পর্যন্ত বেসরকারী মোবাইল ফোন অপারেটররা ওয়াইফাই চালু করেনি। ওয়াইফাই সার্ভিস দেয়ার জন্য বিটিআরসি নির্দেশ দিলেও তারা তা বাস্তবায়ন করেনি। মোবাইল অপারেটররা এ বিষয়টি তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের চোখে দেখছে। ইন্টারনেট সুবিধা মানুষের কাছে সহজলভ্য এবং বেশি মানুষ যাতে ব্যবহার করতে পারে এ জন্য বিটিআরসি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিটিআরসি এর আগে অপারেটরদের ওয়াইফাই সুবিধা দেয়ার নির্দেশ জারি করে। একই নির্দেশ টেলিযোগাযোগের গেটওয়েগুলোর জন্য প্রযোজ্য বলে ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। গেটওয়েসহ মোবাইল অপারেটররা এ নির্দেশ মান্য করছে না। যদিও ওই চিঠিতে বিটিআরসির নির্দেশ অমান্য করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন আপারেটর বিটিআরসির নির্দেশ বাস্তবায়ন করেনি। বিটিআরসিও কারও বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাও নেয়নি।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) জানিয়েছে, ওয়াইফাইয়ের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ওয়্যারলেস ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ উন্মুক্ত হবে। এছাড়া ওয়াইফাই সুবিধা চালু হলে মোবাইল ফোনের গ্রাহক যে কোনো ব্যক্তি, সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, বিমা সংস্থা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ব্যবহার করা যাবে। বিশেষ করে ছাত্রছাত্রীরা এ সুবিধা পেলে তারা বেশি উপকৃত হবে। কারণ ওয়াইফাই সুবিধা পেলে ছাত্রছাত্রীদের টাকা খরচ করে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হবে না।

ওয়াইফাই অপারেটরেদের স্পেকটার্ম ব্যবহারের জন্য বিটিআরসিকে কোন অর্থ দিতে হবে না। তবে এ জন্য অপারেটরদের ৫শ’ টাকা দিয়ে একটি ফর্ম কিনতে হবে এবং প্রসেসিং ফি হিসেবে ৫ হাজার টাকা ফি জমা দিতে হবে। ওয়াইফাই সার্ভিসে অপারেটরের অপারেশন যন্ত্রাংশ থেকে ২শ’ মিটার পর্যন্ত এ সুবিধা পাওয়া যাবে। গাইডলাইনে বলা হয়েছে, বিটিআরসির ৮৩ মেগাহার্জ এবং ১৫০ মেগাহার্জ ব্যান্ডউইথে ওয়্যারলেস সার্ভিস চালুর সুযোগ রাখা হয়েছে। এ জন্য অপারেটররা এই স্পেকটার্ম ভাগাভাগির ভিত্তিতে ব্যবহার করতে পারবে। কোন মোবাইল অপারেটরকে বিশেষ স্পেকটার্ম বরাদ্দ দেয়া হবে না।

ইন্টারনেট,ফ্রি ইন্টারনেট,মার্ক জাকারবার্গ,বিনামূল্যে ইন্টারনেট,এয়ারটেল বাংলাদেশে,ওয়াইফাই,বিটিআরসি,ফেসবুক,ফেসবুকের ফ্রি ইন্টারনেট,ইন্টারনেট.ওআরজি